আমাদের সম্পর্কে

■  সমাজটা এতো বিশৃঙ্খল কেনো? মানুষ মানুষকে কেনো মারে? চার পাশে কেনো এতো কুসংস্কার? কেনো এতো নিষেধাজ্ঞা, যার কোনো কুফল নেই? ঠিক কি কারনে একটা জাতি আর একটা জাতিকে ঘৃনা বা অত্যাচার করে? অনর্থক বিষয় গুলো কেনো মানুষকে জোর করে চাপিয়ে দেওয়া হয়? নারীদের কেনো এতো নিকৃষ্ট ভাবে উপস্থাপন করা হয়?

এই সবগুলো প্রশ্নের উত্তর বা কারন যদি হয় ধর্ম, তাহলে অবশ্যই আমাকে কিছু করতে হবে। আজই করতে হবে এবং এক্ষুনি করতে হবে। যেমন ভাবনা তেমন কাজ। আমি বাকিতে বিশ্বাসী না, নগদে। সঙ্গে সঙ্গে পিসিটা অন করে, নেট কানেক্ট দিয়ে, খোলা হলো একটি ব্লগ। যার নাম দেওয়া হলো এথিস্ট বাংলা এভাবেই এই কমিউনিটির প্রথম পদযাত্রা শুরু।

একটা কুসংস্কার মুক্ত সমাজ গড়তে হলে সমাজের মানুষের জ্ঞানার্জন জরুরি। আমাদের সমাজের অধিকাংশ মানুষই স্বল্পশিক্ষিত। প্রচলিত শিক্ষাব্যাবস্থায় যারা শিক্ষিত, তারা প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার বাইরে যে শিক্ষা আছে সে বিষয়ে অশিক্ষিত। আবার, যারা প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষিত, তারা সার্টিফিকেটধারী শিক্ষিত। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বইয়ে কি লেখা আছে সেটা কোনোদিন খুলেই দেখা হয়না অনেকের। এই যদি হয় আমাদের সমাজের অবস্থা, তাহলে আমরা গোড়ামী থেকে মুক্তি পাবো কবে? আমরা কি তলানীতেই থেকে যাবো?

আমরা সমাজের এমন একটা বিন্দুতে বাস করছি, যেখানে আশেপাশের সবকিছুই গোঁড়ামির বিষয়ে পজেটিভ তথ্য দেয়। একটা ধার্মিক পরিবারে জন্মের পর, ধর্ম বিষয়ক কোনো ইতিহাস নিরেপক্ষভাবে জানা প্রায় অসম্ভব। এভাবে আর কতো দিন চলবে? মানুষের কাছে সঠিক তথ্য পৌছে দেওয়া এখন কর্তব্য হয়ে দাড়িয়েছে। এ সমস্ত ভাবনা থেকে এথিস্ট বাংলা মুক্ত ব্লগ এর প্রতিষ্ঠা। তিল তিল করে সভ্যতা অনেক পথ হেঁটে এসেছে। যদিও সভ্যতার সংজ্ঞা, রূপ নিয়েই আছে অনেক মতভেদ। সভ্য সমাজে কথা বলতে গেলে জীবন দিতে হয় মানুষকে। আধুনিক বিশ্বব্যবস্থায় তাই সভ্যতা খুঁজে ফিরতে হয় আতশ কাঁচ দিয়ে।

আমরা এমন একটি সমাজ গড়তে চাই, যেখানে থাকবেনা কোনো কুসংস্কারের বাধা, কোনো বৈষম্য, কোনো আবদ্ধতা। হাতে হাত রেখে হৃদয়ে হৃদয় মিলিয়ে চলো নিই মুক্তির স্বাদ।